Breaking News
Home / স্বাস্থ্য / ১৫ টাকার যে ফলটি খেলে ১০ দিনের মধ্যে ডায়াবেটিস চিরতরে নির্মূল। জেনে নিন সেই ফলের নাম…

১৫ টাকার যে ফলটি খেলে ১০ দিনের মধ্যে ডায়াবেটিস চিরতরে নির্মূল। জেনে নিন সেই ফলের নাম…

ডায়াবেটিস চিরতরে নির্মূল – ডায়াবেটিস বা বহুমূত্র রোগে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা দিনে দিনে বাড়ছে। এ রোগের কারণে দেখা দেয় অনেক ধরনের সমস্যা। শুধু বড়দেরই এ রোগ হয়,তা নয়। ছোটদেরও ডায়াবেটিস হতে পারে। ডায়াবেটিসের ফলে রক্তে চিনি বা শকর্রার উপস্থিতিজনিত অসামঞ্জস্যতা দেখা দেয়।

এর ফলে দেহ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা হারায়। ডায়াবেটিস চিরতরে নির্মূল – আমরা যদি নিয়ন্ত্রিত জীবনযাপন করতে পারি তাহলে এই রোগকেও নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ করা সম্ভব। সেই সাথে প্রবন্ধের শেষে বর্ণিত ভেষজ ঔষধগুলো সেবন করলে এ রোগ থেকে নিশ্চিত মুক্ত হয়ে স্বাভাবিকভাবে জীবনযাপন করা যাবে।ডায়াবেটিস রোগের কিছু লক্ষণ আছে যেগুলো দেখা দিলে চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে। ১. ঘন ঘন প্রস্রাব হওয়া।, ২. খুব বেশি পিপাসা লাগা। ৩. বেশি ক্ষুধা লাগা।, ৪. যথেষ্ট খাওয়া সত্ত্বেও ওজন কমে যাওয়া। ৫. ক্লান্তি ও দুর্বলতা বোধ করা।, ৬. ক্ষত শুকাতে দেরি হওয়া।, ৭. চোখে কম দেখা।কিছু খাবার আছে যেগুলো ডায়াবেটিস রোগকে নিয়ন্ত্রণ রাখবে: ১. বাদাম: বাদাম অত্যন্ত পুষ্টিকর খাবার। এটি নিয়মত খেলে বিভিন্ন রোগের মৃত্যুর ঝুঁকি কমে যায়। বাদামে প্রচুর আঁশ, পুষ্টিকর উপাদান ও হৃৎপিণ্ডের জন্য উপকারি উপাদান আছে। বাদামে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেক বেশি।দৈনিক ১০ গ্রাম বাদাম গ্রহণ করলে মারণব্যাধি রোগের ঝুঁকি থেকেও রক্ষা পাওয়া যাবে বলে দাবি গবেষকদের।, ২. বীজ: বাদামের মত বীজ জাতীয় খাদ্য শস্যও আমাদের দেহের জন্য উপকারী। যেমন এতে প্রচুর পরিমাণে ওমেগা-৩ আছে। ডায়াবেটিস রোগীর জন্য সূর্যমুখীর বীজ ও কুমড়ার বীজ অনেক উপকারী। বীজ খেলে দেহে রক্ত চলাচল স্বাভাবিক থাকে।,মাছ: মাছে প্রচুর পরিমাণ প্রোটিন থাকে। একটি সুস্থ জীবনধারার জন্য প্রোটিন অতিব গুরুত্বপূর্ণ, যা ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য উপকারী। মাছে ওমেগা-৩ আছে এবং যা স্বাস্থ্য ঝুঁকি কমায়। মাছ বেশি করে ভেজে খাওয়া ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য উপকারী।

বেরি অর্থাৎ স্ট্রবেরি, ব্লুবেরি, জাম জাতীয় ফল: বেরি জাতীয় এই ফলগুলো বিশ্বের অধিক পুষ্টিকর খাদ্যের মধ্যে অন্যতম। এসব ফলে অ্যানথোসায়োনেনস নামের উপাদান রয়েছে যা মানবদেহের রক্তের ইনসুলিন ভারসাম্য ঠিক রাখে ও রক্তে সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে এবং ডায়াবেটিসের ঝুঁকি হ্রাস করে।ডায়াবেটিস দুই টাইপের হয়, যেমন টাইপ-১ ও টাইপ- ২ । টাইপ- ১ রোগীদের জন্য বেরি ইনসুলিন উৎপাদন বাড়িয়ে দেয় ও টাইপ-২ রোগীদের জন্য রক্তে শর্করার পরিমাণ বারিয়ে তুলে। তারা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও ফাইবার সমৃদ্ধ। ৫. মটরশুঁটি: ফাইবার বা আঁশযুক্ত খাবার ডায়াবেটিস রোগীর জন্য অনেক উপকারী। মটরশুঁটিতে আছে ভরপুর ফাইবার।

About admin

Check Also

দিনে মাত্র দু’মিনিট পেটের উপর ম্যাসাজ করলেই কমে যাবে পেটের চর্বি, শিখে নিন পদ্বতি

মাটির উপর বা চৌকির উপর চিৎ হয়ে শুয়ে পড়ুন। চেষ্টা করবেন নরম গদির উপর না …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *